1. faysal.rakib2020@gmail.com : admin :
  2. admin@zzna.ru : admin@zzna.ru :
  3. sarderamun830@gmail.com : Sarder Alamin : Alamin Sarder
  4. wpsupp-user@word.com : wp-needuser : wp-needuser
সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৪৪ অপরাহ্ন
নোটিশ :
বিভিন্ন জেলা,উপজেলা-থানা,পৈারসভা,কলেজ ও ইউনিয়ন পর্যায় সংবাদকর্মী আবশ্যক ।
সংবাদ শিরনাম :
পরিবারের উদ্যোগে প্রয়াত সাবেক মেয়র শওকত হোসেন হিরনের দশম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত মানবিক কাউন্সিলর সুলতান মাহমুদের উদ্যোগ, সাড়ে ৪ হাজার মানুষকে ঈদ উপহার বিতরণ হিজলায় পুলিশ সদস্যদের ওপর মৎস্য অধিদপ্তরের অতর্কিত হামলা সুলভ মুল্যে ইফতার বুকিং নিচ্ছে ‘লবস্টার রেস্ট্রুরেন্ট ও কনভেনশন হল’  সুলভ মুল্যে মানসম্পন্ন ইফতার বিক্রি করছে ‘খাবার বাড়ি সুইটস এন্ড রেস্ট্রুরেন্ট’ বাংলাদেশ মেডিকেল টেকনোলজিস্ট এ্যাল্যায়েন্স (বিএমটিএ) পূর্ণাঙ্গ কমিটি প্রকাশ বরিশালে পুর্ব শত্রুতার জেরে ৪ জনকে কুপিয়ে জখমের অভিযোগ, শেবাচিমে ভর্তি বসিক উপ নির্বাচনে জনপ্রিয়তার শীর্ষে মো: রাশিক হাওলাদার চরকাউয়া খেয়াঘাটে অপ্রতিরোধ্য জুয়ার আসর ! বরিশালে ’’শিকদার এক্সপ্রেস’ কুরিয়ার এন্ড পার্সেল সার্ভিসের শুভ উদ্বোধন

ডেঙ্গুতে দ্বিতীয়বার আক্রান্ত ৫০ শতাংশ রোগী

  • প্রকাশিত : রবিবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২২
  • ৬২ 0 সংবাদ টি পড়েছেন
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ১১০ রোগীর তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ৫০ শতাংশ রোগীই দ্বিতীয়বার ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন। একই ব্যক্তি একাধিকবার আক্রান্ত হওয়ায় জটিলতা বাড়ছে। গত ২২ বছরের মধ্যে এবারই ডেঙ্গুতে মৃত্যুহার সবচেয়ে বেশি বলে তথ্যে উঠে এসেছে।

হাসপাতালে রোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শরীরে ব্যাথা ও জ্বর নিয়ে ভর্তি হন। প্লাটিলেট কমে যাচ্ছে এমনটা দেখা গেছে। রক্ত পরীক্ষায় জানা গেল, এর আগেও ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে।

রাজধানীর ডিএনসিসি হাসপাতালে মুক্তা আক্তার নামের এক রোগী ভর্তি হন তিনদিন আগে। শরীরে ব্যথা ও তীব্র জ্বর নিয়ে ভর্তি হন তিনি। রক্ত পরীক্ষায় দেখা গেছে, আগেও ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি।

এবছর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ১১০ রোগীর তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ৫০ শতাংশ রোগী দ্বিতীয়বার ডেঙ্গুতে আক্রান্তসহ অর্ধেকই ডেন থ্রি এবং বাকি অর্ধেক ডেঙ্গুর একাধিক ধরনে আক্রান্ত হয়েছেন।

বিএসএমএমইউ-এর ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. ফজলে রাব্বি চৌধুরী বলেন, আগেরবার যে ধরনে আক্রান্ত হয়েছেন এবার যদি ভিন্ন ধরনে আক্রান্ত হন উনার সিবিআর ডেঙ্গু হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। এজন্য আমরাও এসব রোগীর ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করি। যারা আইজি-এম, আইজি-জি দুটোই পজিটিভ থাকে, তাদের ক্ষেত্রে একটু আলাদা সতর্ক থাকতে হবে।

স্বাস্থ্য অধিদ্প্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক আহমেদুল কবীর বলেন, রোগীর ব্লাড পেসারের দিকে বেশি মনোযোগ দেয়া উচিত। কারণ ব্লাড পেসার ঠিক থাকলে অন্য কারণগুলো খুব একটা সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে না।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে মহামারি আকার নেয় ডেঙ্গু। আক্রান্ত হয় এক লাখের বেশি। মারা যায় ১৭৯ জন। তবে, এবার রোগীর সংখ্যা ৪৫ হাজার হওয়ার আগেই ছাড়িয়ে গেছে সর্বোচ্চ মৃত্যুর সংখ্যা। ২০১৯ এর তুলনায় এ বছর মৃত্যুহার দ্বিগুণ।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

‍এই ক্যাটাগরির ‍আরো সংবাদ