1. faysal.rakib2020@gmail.com : admin :
  2. sarderamun830@gmail.com : Sarder Alamin : Alamin Sarder
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:২৮ অপরাহ্ন
নোটিশ :
বিভিন্ন জেলা,উপজেলা-থানা,পৈারসভা,কলেজ ও ইউনিয়ন পর্যায় সংবাদকর্মী আবশ্যক ।

টিসিবির পণ্যে সয়লাব খোলাবাজারে

  • প্রকাশিত : শনিবার, ১২ মার্চ, ২০২২
  • ৩৪ 0 বার সংবাদি দেখেছে
ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি // ঠাকুরগাঁও শহরের বাইরের বিভিন্ন হাট বাজারের দোকান এখন সয়লাব টিসিবির সয়াবিন তেল। তবে সেসব তেল বিক্রি হচ্ছে খোলাবাজারের সমমান মূল্যে। প্রশাসনের সঠিক নজরদারি না থাকায় এমটা হচ্ছে বলে অভিযোগ করছে ক্রেতারা।

ঠাকুরগাঁও বালিয়াডাঙ্গীর লাহিড়ী হাটের দোকান গুলোতে দেখা যায়, দোকানে শোভা পাচ্ছে সারিবদ্ধভাবে সাজিয়ে রাখা টিসিবির বেশ কিছু বসুন্ধরা সয়াবিন তেল। তেল কিনতে চাইলে তেলের বোতল দেয়ার আগেই ২ লিটার তেলের জন্যে দোকানি দাম হাকালেন ৩৪০ টাকা। যদিও বোতলের গায়ে কোনো মূল্য লেখা ছিল না। বোতলের একপাশের ষ্টিকারও ছেঁড়া। দোকানের পেছন দিকে থাকা খোলা গোডাউনে পাওয়া গেলো টিসিবির মনোগ্রাম সহ আরও এক বাক্স সয়াবিন তেল।

দোকানে রাখা সয়াবিন তেলগুলো টিসিবির পণ্য হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে দোকানদার আকরাম বলেন, দোকানের ছেলেরা লাইনে দাড়িয়ে একটি একটি করে কিনেছিলো। বাসায় খবার জন্যে রেখেছি। ছেলেটি ভুল করে ক্রেতার কাছে বিক্রি করতে চেয়েছিল।

তবে দোকানে পাওয়া টিসিবির বাক্সের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোনো উত্তর দিতে পারেননি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পাশের এক দোকানদার জানান, বাজারের প্রায় প্রতিটি দোকানে এরকম টিসিবির তেল, ডাল ও চিনি পাওয়া যাবে। সবাই প্রায় খোলামেলা ভাবেই এগুলো বিক্রি করছে। কিন্তু প্রশাসনকে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করতে দেখছি না এখনও।

কালো কালি ব্যবহার করে সয়াবিন তেলের বোতলের গায়ে লেখা মূল্য লুকানোর চেষ্টা। ছবি- প্রতিনিধি

আকরামের দোকানে টিসিবির পণ্যের সংবাদ সংগ্রহের সময় বাজারের সাধারণ ক্রেতাদের ভীড় জমে যায়। অনেকেই দোকানিকে অসাধু আখ্যা দিয়ে দোকান বয়কটের ঘোষনা দিতে থাকে। এই ঘটনা চলাকালীন সময়ে অন্যান্য অনেক ব্যবসায়ীকেই দোকান বন্ধ করে দিতে দেখা যায়।

উপস্থিত এক ক্রেতা জানান, এই দোকান থেকে এর আগে আমি এমনি একটি তেলের বোতল কিনেছি। আমি না জেনে এটা কিনেছিলাম। এই অসাধু ব্যবসায়ী ও তাদেরকে যারা সাহায্য করছে তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া উচিত।

এই বিষয়ে ওই এলাকার টিসিবির ডিলার শিমুলের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, দোকানে পাওয়া টিসিবির তেলের বোতলগুলো কোথা থেকে এসেছে আমার জানা নেই। আমি কোনো দোকানির কাছে কখনোই টিসিবির পণ্য বিক্রি করিনি।

ঠাকুরগাঁও ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক শেখ সাদী জানান, আমরা নিয়মিত বাজার মনিটরিং করছি। দূরের বাজার গুলোতে একটু কম যাওয়া হচ্ছে। তবে বাজারে নিত্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণ এবং দুর্নীতি প্রতিরোধে দ্রুতই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

‍এই ক্যাটাগরির ‍আরো সংবাদ