1. faysal.rakib2020@gmail.com : admin :
  2. sarderamun830@gmail.com : Sarder Alamin : Alamin Sarder
মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:৪৮ পূর্বাহ্ন
নোটিশ :
বিভিন্ন জেলা,উপজেলা-থানা,পৈারসভা,কলেজ ও ইউনিয়ন পর্যায় সংবাদকর্মী আবশ্যক ।
সংবাদ শিরনাম :
চরকাউয়া খেয়াঘাটে অপ্রতিরোধ্য জুয়ার আসর ! বরিশালে ’’শিকদার এক্সপ্রেস’ কুরিয়ার এন্ড পার্সেল সার্ভিসের শুভ উদ্বোধন বরিশালে মাতৃছায়া মানব কল্যাণ সংস্থার ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী ববির বহিষ্কৃত ছাত্র বাকীর খুটির জোর কোথায়, অভিযোগের তীর প্রক্টরের দিকে ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে খালিদ কে দেখতে চাই বাকেরগঞ্জবাসী বদরুল আলম’কে ভাইস চেয়ারম্যান পদে পেতে চায় উপজেলাবাসী জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত আসন, বরিশাল বিভাগ থেকে আলোচনায় যারা কথিত ছাত্রলীগ নেতা জুবায়েরের খুটির জোর কোথায়! বিদ্যুৎ বিলের নামে চাঁদা কালেকশন হিজলায় নৌকার সমর্থকের হাতের রগ কাটার পর বসতঘরে অগ্নিসংযোগ হিজলা-মেহেন্দিগঞ্জ নৌকার কর্মী-সমর্থকদের উপর অব্যাহত হামলা-আহত ২০-২৫!

পঞ্চগড়ে সংঘর্ষ: ২০ মামলায় গ্রেপ্তার ১৮৭

  • প্রকাশিত : রবিবার, ১২ মার্চ, ২০২৩
  • ৩৮ 0 সংবাদ টি পড়েছেন
পঞ্চগড় প্রতিনিধি // পঞ্চগড়ের আহমদিয়া সম্প্রদায়ের (কাদিয়ানি) সালানা জলসাকে কেন্দ্র করে সংঘাত, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনায় নতুন করে ছয়জনকে গ্রেপ্তার করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

শনিবার রাত থেকে রোববার সকাল পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই নিয়ে মোট ১৮৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ধর্মীয় সংঘাতের পরে পঞ্চগড় থানায় ১৩টি ও বোদা থানায় ৩টি মামলা দায়ের হয়েছিল। জেলা পুলিশ সুপার এসএম সিরাজুল ইসলাম হুদা জানিয়েছেন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পক্ষ থেকে নতুন করে সদর থানায় দুটি এবং বোদা থানায় দুটি মামলা দায়ের হয়েছে। তিনি বলেন, ‘সুনির্দিষ্ট তথ্য ও সিসিটিভি ফুটেজ দেখে আমরা গ্রেপ্তার করছি।’

সিরাজুল ইসলাম,’এই পুরো ঘটনাটি ছিল পূর্ব পরিকল্পিত। প্রশিক্ষিত একটি দল আহমদিয়া স¤প্রদায়ের ওপর হামলা চালায়। তাদের হাতে যেসব অস্ত্র ছিল তার আঘাতে মানুষের মৃত্যু হতে পারে।’

পঞ্চগড় শহরের উপকণ্ঠে আহম্মদনগর এলাকায় আহমদিয়া জামাতের ৩ দিনব্যাপী সালানা জলসা বন্ধের দাবিতে গত ৩ মার্চ শুক্রবার জুমার নামাজের পরে পঞ্চগড় শহরের বিভিন্ন মসজিদ থেকে মিছিল নিয়ে বিক্ষোভকারীরা শহরের চৌরঙ্গী মোড়ে জড়ো হন এবং মিছিল নিয়ে করতোয়া সেতু দিয়ে জলসা অভিমুখে যাত্রা শুরু করেন। এতে বাধা দিলে পুলিশের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ শুরু হয়। এক পর্যায়ে বিক্ষোভকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে শহরের বিভিন্ন অলিগলিতে ঢুকে পড়েন।

একদল বিক্ষোভকারী আহম্মদনগর এলাকায় গিয়ে আহমদিয়া স¤প্রদায়ের শতাধিক বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে ও ভাঙচুর চালায়। সন্ধ্যা পর্যন্ত এই অবস্থা চলে। এ ঘটনায় ২ তরুণ নিহত ও শতাধিক মানুষ আহত হন। সংঘর্ষের এক পর্যায়ে পুলিশ, বিজিবি ও র‌্যাব সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট ছোড়েন। পরে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে আহমদিয়াদের জলসা বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

শনিবার (৪ মার্চ) সারা দিন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকলেও রাত সাড়ে ৮টার দিকে মানুষ আবারো রাস্তায় নেমে আসে এবং দু’ভাগ হয়ে আহম্মদনগর ও তুলারডাঙ্গা এলাকার দিকে যেতে থাকে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতায় গভীর রাতে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

এর আগে গত ২ মার্চ জলসা বন্ধের দাবিতে জেলা প্রশাসক বরাবর ইসলামী আন্দোলনসহ সমমনা কয়েকটি সংগঠন স্মারকলিপি দেয়। ওই দিন সকাল থেকে প্রায় ৫ ঘণ্টা শহরের চৌরঙ্গী মোড়ে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

‍এই ক্যাটাগরির ‍আরো সংবাদ