1. faysal.rakib2020@gmail.com : admin :
  2. sarderamun830@gmail.com : Sarder Alamin : Alamin Sarder
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:৪৮ অপরাহ্ন
নোটিশ :
বিভিন্ন জেলা,উপজেলা-থানা,পৈারসভা,কলেজ ও ইউনিয়ন পর্যায় সংবাদকর্মী আবশ্যক ।

ফরিদপুরেও এবার পরিবহন ধর্মঘটের গ্যাঁড়াকলে বিএনপির মহাসমাবেশ

  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ১১ নভেম্বর, ২০২২
  • ১২ 0 বার সংবাদি দেখেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক // ফরিদপুরেও এবার পরিবহন ধর্মঘটের গ্যাঁড়াকলে বিএনপির মহাসমাবেশ। আজ ও আগামীকাল পরিবহন ধর্মঘট ডেকেছে মালিক-শ্রমিকরা। তাই দুই-তিন দিন আগেই সমাবেশস্থলে আসতে শুরু করেছেন বিভিন্ন জেলার নেতাকর্মীরা।

বুধবার রাতে শরিয়তপুর থেকে ছয়শ নেতাকর্মী সমাবেশস্থল কোমরপুর আবদুল আজিজ ইনস্টিটিউশনে এসে পৌঁছান। বিএনপির নেতারা বলছেন, শুক্রবার সকাল থেকে বাস ও মিনিবাস বন্ধ করে দেওয়ায় বৃহস্পতিবার রাতের মধ্যে আশপাশের জেলা থেকে নেতাকর্মীরা চলে এসেছেন সমাবেশস্থলে।

আজ বিকল্প ব্যবস্থায় অনেক কর্মী-সমর্থক উপস্থিত হবেন। তারা সমাবেশের মাঠেই থাকছেন। শীতের মধ্যে মাঠে সামিয়ানা টানিয়ে সেখানেই থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করছে স্থানীয় বিএনপি।

নিত্যপণ্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি, নেতাকর্মী হত্যার প্রতিবাদ এবং খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে বিএনপি প্রতিটি বিভাগীয় শহরে গণসমাবেশের কর্মসূচি দেয়।

চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ, খুলনা, রংপুর ও বরিশালের পর আগামীকাল শনিবার ফরিদপুরে এ গণসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। ফরিদপুর শহর থেকে ছয় কিলোমিটার দূরে কোমরপুর আবদুল আজিজ ইনস্টিটিউশন মাঠে সমাবেশের অনুমতি দিয়েছে প্রশাসন।

বিএনপির সব সমাবেশ ঘিরে পরিবহন সংগঠনগুলো অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘট ডাকে তাদের নিজস্ব দাবিতে। তবে দেখা যাচ্ছে বিএনপির সমাবেশ শেষ হওয়ার পরপরই গাড়ি চলাচল স্বাভাবিক হচ্ছে।

মহাসড়কে সব ধরনের অবৈধ থ্রি-হুইলার চলাচল বন্ধের দাবিতে শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে শনিবার রাত ৮টা পর্যন্ত ফরিদপুরের সব রুটে বাস ও মিনিবাস বন্ধ থাকবে।

তবে ১২ নভেম্বর ফরিদপুরে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশকে সামনে রেখে সরকার ও প্রশাসনের ইন্ধনে এই বাস ধর্মঘট ডাকা হয়েছে বলে দাবি করছেন বিএনপির স্থানীয় নেতাকর্মীরা।

ফরিদপুরের সমাবেশ ঘিরে বেলা ১১টার দিকে সরেজমিন দেখা গেছে, সমাবেশ উপলক্ষে মাঠে মঞ্চ তৈরির কাজ চলছে। কাজ তদারকি করছেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জহিরুল হক ও জেলা বিএনপির আহ্বায়ক সৈয়দ মোদাররেছ আলী।

শরিয়তপুর থেকে আসা নেতাকর্মীদের থাকার জন্য মাঠ লাগোয়া একটি বিদ্যালয়ের দুটি বড় কক্ষ খুলে দেওয়া হয়েছে। ওই দুই কক্ষে ও বিদ্যালয়ের বারান্দায় নেতাকর্মীদের অবস্থান করতে দেখা গেছে। তারা মাঠ ঘুরে, শ্রেণিকক্ষে বসে সময় পার করছেন।

ধর্মঘটের বিড়ম্বনা এড়াতে শরিয়তপুর থেকে কয়েক হাজার বিএনপির নেতাকর্মী ফরিদপুরে এসে পৌঁছায়। এ সময় শরিয়তপুর বিএনপি নেতা মোফাজ্জল হোসেন বলেন, ‘ধর্মঘটের বিড়ম্বনা এড়াতে নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে তিন দিন আগে চলে এসেছেন। আর এ তিন দিনের কষ্ট কোনো কষ্ট নয়।’

স্থানীয় বিএনপি নেতারা জানান, তারা আশপাশের বাড়ি থেকে রান্না করা খাবার সরবরাহ করছেন। থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা করছেন।

তারা কর্মীদের সতর্ক করছেন যাতে কেউ সরকারি দলের উসকানিতে পা না দেয়। বাস বন্ধ করে বিএনপির সমাবেশ জনসমাগম ঠেকানো যাবে না বলে দাবি করেছেন ফরিদপুর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক সৈয়দ মোদাররেছ আলী।

এদিকে ফরিদপুর বিএনপির নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি পুলিশি অভিযান চলছে বলে অভিযোগ করেছে দলটি। গণসমাবেশ সামনে রেখে বিএনপির ওপর চাপ বাড়াতেই এমন অভিযান চালানো হচ্ছে বলে জানান নেতারা। গণসমাবেশের দুদিন আগে ফরিদপুরে ৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বিএনপির ফরিদপুর বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ গতকাল রাত ৯টায় জানান, ‘আমাদের সমাবেশ মাঠ ইতিমধ্যে অর্ধেক ভরে গেছে। নেতাকর্মীরা বিভিন্ন জায়গা থেকে চলে এসেছেন। সরকারের প্রতিবন্ধকতার কারণে সমাবেশ তিন দিনে গড়াচ্ছে।

লোকজন বাধ্য হয়েই চলে আসছে আগেভাগে।’ তিনি অভিযোগ করেন, ‘রাস্তার মোড়ে মোড়ে পুলিশ ব্যারিকেড দিচ্ছে। নেতাকর্মীদের বাসাবাড়িতে তল্লাশি করছে।’

গণসমাবেশ সামনে রেখে গতকাল ফরিদপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এজেডএম জাহিদ হোসেন বলেন, ‘ফরিদপুর বিভাগীয় গণসমাবেশ সামনে রেখে পুলিশ বিএনপির নেতাকর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে অভিযানের নামে হামলা করছে।

পুরোনো গ্রেফতারি পরোয়ানা তামিলের নামে বিএনপির নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করছে।’ জানতে চাইলে নগরকান্দা থানার ওসি মিরাজ হোসেন বলেন, ‘বিএনপির কোনো নেতাকর্মীকে পুলিশ গ্রেফতার করেনি।

পুলিশ মঙ্গলবার রাতে নগরকান্দার বিভিন্ন জায়গা থেকে যে আটজনকে গ্রেফতার করেছে, তারা সবাই ওয়ারেন্টভুক্ত পলাতক আসমি।’

গতকাল বিকালে ফরিদপুরে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে শতাধিক মোটরসাইকেল নিয়ে মহড়া হয়েছে।

বিকাল ৪টার দিকে মহড়া শহরের শেখ রাসেল স্কোয়ার থেকে শুরু হয়ে ভাঙ্গা রাস্তার মোড়, রাজবাড়ী রাস্তার মোড় হয়ে ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক ধরে কোমরপুরে আবদুল আজিজ ইনস্টিটিউশন এলাকা হয়ে ধুলদী পর্যন্ত যায়।

পরে মোটরসাইকেলের মহড়া শহরের কাঠপট্টি এলাকায় জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে দিয়ে ঝিলটুলী হয়ে আবার শেখ রাসেল স্কোয়ারে এসে শেষ হয়।

জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য শরিফুল হাসান বলেন, ‘নির্ধারিত কর্মসূচি হিসেবে এ মোটরসাইকেল মহড়া হয়েছে।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

‍এই ক্যাটাগরির ‍আরো সংবাদ