1. faysal.rakib2020@gmail.com : admin :
  2. sarderamun830@gmail.com : Sarder Alamin : Alamin Sarder
রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন
নোটিশ :
বিভিন্ন জেলা,উপজেলা-থানা,পৈারসভা,কলেজ ও ইউনিয়ন পর্যায় সংবাদকর্মী আবশ্যক ।

মধ্যরাতে বরিশাল নৌবন্দরে উপচেপড়া ভিড়, নির্বিঘ্নে বাড়ি ফিরে খুশি যাত্রীরা

  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ২৯ এপ্রিল, ২০২২
  • ১১ 0 বার সংবাদি দেখেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক // ঈদ স্পেশাল সার্ভিসের প্রথম দিনে মধ্যরাত থেকে ভোর পর্যন্ত একের পর এক লঞ্চ যাত্রী বোঝাই করে বরিশাল নদী বন্দরে নোঙর করে। যাত্রী নামিয়ে লঞ্চগুলো ফিরে গেছে ঢাকার উদ্দেশে। উপচেপড়া ভিড় ছিলো বরিশাল নদীবন্দরে। বন্দরের বাইরে যানজট নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত পুলিশের পাশাপাশি ছিলো বরিশাল সিটি করপোরেশনের কর্মীরাও। এর আগে বৃহস্পতিবার বিকাল থেকে ঢাকা সদরঘাট ছেড়ে বরিশালের উদ্দেশে আসা শুরু করে লঞ্চগুলো। এরপর রাত ১টা থেকে একের পর এক লঞ্চগুলো বরিশাল নদীবন্দরে আসতে থাকে যাত্রী নিয়ে।

বরিশাল নদী বন্দর সূত্রে জানা গেছে, রাত ১টায় রাজারহাট বি নামের একটি ভায়া লঞ্চ ঢাকা থেকে বরিশাল নদীবন্দরে প্রথম আসে। এরপর রয়েল ক্রুজ নামে একটি লঞ্চ রাত ১টা ২০ মিনিটে নোঙর করে, ২টা ৩০ এ পূবালী ৭, ৩টা ৯ মিনিটে ফারহান ৭, এরপর পর্যায়ক্রমে মানামী, রেডসান, পারাবাত ১০, প্রিন্স আওলাদ ১০, কুয়াকাটা ২, সুন্দরবন ১১, সুরভী ৮, কীর্তনখোলা ১০ ও পারাবাত ১২ লঞ্চ নোঙর করে। এরপর এই রুটের স্পেশাল সার্ভিসের বাকি লঞ্চগুলোও আসে বরিশাল নদীবন্দরে।

বরিশাল নদী বন্দর কর্মকর্তা বিআইডব্লিউটিএর যুগ্ম পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ভায়াসহ প্রায় ২৩টি লঞ্চ স্পেশাল সার্ভিসের প্রথম দিনে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসে নাড়ির টানে বাড়ি ফেরা মানুষদের নিয়ে। কোনো ধরণের অভিযোগ পাওয়া যায়নি, মানুষ স্বাচ্ছন্দ্যে বাড়ি ফিরছে। এছাড়াও আমরা প্রতিনিয়ত টহল দিচ্ছি। সব লঞ্চকে অতিরিক্ত যাত্রী বহনে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া রয়েছে।

জানা গেছে, প্রতি লঞ্চে গড়ে ৪ হাজার যাত্রী ছিলো প্রথম স্পেশাল সার্ভিসে।

পূবালী ৭ লঞ্চে ঢাকা থেকে বরিশালে আসা যাত্রী আফসানা রুম্পা বলেন, ঈদে শত কষ্ট করে হলেও বাড়ি ফিরে অনেক খুশি। কিছু ভোগান্তি ছিলো, তবে বরিশালে পা দিয়ে সব ভুলে গেছি।

সুন্দরবন ১১ লঞ্চের যাত্রী সুবাহ জাহান বলেন, লঞ্চে তেমন কোনো সমস্যাই হয়নি। নির্বিঘ্নে এসেছি। করোনা প্যান্ডামিকের কারণে দুই বছর দেশের বাড়িতে আসতে পারিনি। এবারে আসতে পেরে ভালোই লাগছে।

অধিকাংশ যাত্রীই এবারে লঞ্চে ঈদযাত্রার প্রথম দিনে তারা বেশ ঝামেলাবিহীন ভাবেই বরিশালে পৌছান বলে জানিয়েছেন।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার সেলিম মোহাম্মদ শেখ বলেন, যাত্রীদের নিরাপত্তা ও তারা যাতে করে লঞ্চ ঘাট থেকে নির্বিঘ্নে বাড়ি পৌছাতে পারে এই জন্য সব ধরণের ব্যবস্থা নিয়ে মেট্রো পুলিশ। লঞ্চঘাট এলাকাতেই ট্রাফিক বিভাগের ৪০ পুলিশ সদস্য কাজ করেছে রাতভর, যাদের দিনে ডিউটি রয়েছে তারাও ছিলো লঞ্চঘাট এলাকায়। আমরা সর্বোচ্চ দিয়ে ঘরে ফেরা মানুষদের নিরাপত্তায় কাজ করছি।’

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

‍এই ক্যাটাগরির ‍আরো সংবাদ