1. faysal.rakib2020@gmail.com : admin :
  2. admin@zzna.ru : admin@zzna.ru :
  3. sarderamun830@gmail.com : Sarder Alamin : Alamin Sarder
  4. wpsupp-user@word.com : wp-needuser : wp-needuser
মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:০৮ পূর্বাহ্ন
নোটিশ :
বিভিন্ন জেলা,উপজেলা-থানা,পৈারসভা,কলেজ ও ইউনিয়ন পর্যায় সংবাদকর্মী আবশ্যক ।
সংবাদ শিরনাম :
পরিবারের উদ্যোগে প্রয়াত সাবেক মেয়র শওকত হোসেন হিরনের দশম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত মানবিক কাউন্সিলর সুলতান মাহমুদের উদ্যোগ, সাড়ে ৪ হাজার মানুষকে ঈদ উপহার বিতরণ হিজলায় পুলিশ সদস্যদের ওপর মৎস্য অধিদপ্তরের অতর্কিত হামলা সুলভ মুল্যে ইফতার বুকিং নিচ্ছে ‘লবস্টার রেস্ট্রুরেন্ট ও কনভেনশন হল’  সুলভ মুল্যে মানসম্পন্ন ইফতার বিক্রি করছে ‘খাবার বাড়ি সুইটস এন্ড রেস্ট্রুরেন্ট’ বাংলাদেশ মেডিকেল টেকনোলজিস্ট এ্যাল্যায়েন্স (বিএমটিএ) পূর্ণাঙ্গ কমিটি প্রকাশ বরিশালে পুর্ব শত্রুতার জেরে ৪ জনকে কুপিয়ে জখমের অভিযোগ, শেবাচিমে ভর্তি বসিক উপ নির্বাচনে জনপ্রিয়তার শীর্ষে মো: রাশিক হাওলাদার চরকাউয়া খেয়াঘাটে অপ্রতিরোধ্য জুয়ার আসর ! বরিশালে ’’শিকদার এক্সপ্রেস’ কুরিয়ার এন্ড পার্সেল সার্ভিসের শুভ উদ্বোধন

চেয়ারম্যানের ভয়ে গ্রামছাড়া এলাকাবাসী

  • প্রকাশিত : বুধবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২২
  • ৯০ 0 সংবাদ টি পড়েছেন
ডেক্স রিপোর্ট // ঝিনাইদহে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিরোধী দলের লোকজনকে হেনস্তা করার অভিযোগ উঠেছে। ভুক্তভোগী ব্যক্তিরা বলেন, সম্প্রতি একটি ধর্ষণ মামলার আসামি হওয়ার পর বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন চেয়ারম্যান। গত দুই দিনে পাঁচজনকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করা হয়েছে। ভয়ে গ্রামছাড়া হয়েছেন অন্তত ১৫ জন।

ঘটনাটি ঘটেছে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার হরিশংকরপুর ইউনিয়নের বাকড়ি গ্রামে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান খন্দকার ফারুকুজ্জামান ও তার লোকজনের হামলায় আহত ব্যক্তিরা হলেন, স্থানীয় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহবুবুল আলম, ইউপির ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য বদরুল হাসান, ফরিদুল ইসলাম, জামিরুল ইসলাম ও আলী হোসেন। তাদের মধ্যে আলী হোসেন ছাড়া অন্যরা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, চেয়ারম্যান ফারুকুজ্জামানের বিরুদ্ধে ২০ এপ্রিল এক নারী সদর থানায় ধর্ষণের একটি মামলা করেন। মামলার অপর আসামি চেয়ারম্যানের ব্যক্তিগত গাড়ির চালক শাহীন।

চেয়ারম্যানের ধারণা, তার বিরোধী হিসেবে পরিচিত স্কুলশিক্ষক মাহবুবুল আলম, ইউপি সদস্য বদরুল হাসান ধর্ষণ মামলাটি করেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা হওয়ার পর তার সমর্থকেরা উত্তেজিত হয়ে একের পর এক ঘটনা ঘটিয়ে চলেছে। পাঁচজনকে আহত করার পরদিন বাকড়ি গ্রামে আবার হামলা চালান চেয়ারম্যানের লোকজন। ভয়ে এলাকাছাড়া হন অন্তত ১৫ জন।

যদিও এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন চেয়ারম্যান খন্দকার ফারুকুজ্জামান। তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে আনিত হামলার অভিযোগ মিথ্যা। বিরোধী একটি পক্ষ সম্মানহানির জন্য মিথ্যা কথা রটাচ্ছে। ঘটনার সময় তিনি বাইরে ছিলেন, মুঠোফোনটিও বন্ধ ছিলো।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

‍এই ক্যাটাগরির ‍আরো সংবাদ