1. faysal.rakib2020@gmail.com : admin :
  2. sarderamun830@gmail.com : Sarder Alamin : Alamin Sarder
রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ০৫:৩০ অপরাহ্ন
নোটিশ :
বিভিন্ন জেলা,উপজেলা-থানা,পৈারসভা,কলেজ ও ইউনিয়ন পর্যায় সংবাদকর্মী আবশ্যক ।

দীর্ঘ দুই বছর পর সারাদেশে বর্ষবরণ

  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২২
  • ৯ 0 বার সংবাদি দেখেছে
ডেক্স রিপোর্ট // করোনার প্রকোপ কাটিয়ে দীর্ঘ দুই বছর পর আবারও বাংলা বর্ষবরণের উচ্ছ্বাসে মেতেছে সারাদেশ। পুরানো সব জঞ্জালকে ধুয়ে মুছে ফেলে নতুন বছরে ভালো কিছু করার প্রত্যয়ে বরণ করা হচ্ছে বাংলা নতুন বছরকে।

বর্ষবরণ উপলক্ষে জেলায় জেলায় নানা কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় আয়োজিত এসব অনুষ্ঠানের মধ্য রয়েছে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, আনন্দ মিছিল, ছবি আঁকা, বৈশাখী মেলা ইত্যাদি।

বাংলাদেশ জার্নালের প্রতিনিধিদের পাঠানো সংবাদে জেলায় জেলায় বর্ষবরণ পালনের সংবাদ তুলে ধরা হলো।

 

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

‘মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা, অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা’ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) বাংলা নববর্ষ ১৪২৯ উদযাপিত হয়েছে। দিনটি উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টায় প্রশাসন ভবনের সামনে বেলুন উড়িয়ে কর্মসূচির উদ্ধোধন করেন ভিসি প্রফেসর ড.শেখ আবদুস সালাম।

উদ্বোধন শেষে একই স্থান থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী, ছাত্র-ছাত্রী, বিভিন্ন হল, বিভাগ এবং সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের অংশগ্রহণে এক বর্ণাঢ্য “মঙ্গল শোভাযাত্রা” বের করা হয়।

শোভাযাত্রায় নেতৃত্ব দেন ভিসি প্রফেসর ড.শেখ আবদুস সালাম। উপস্থিত ছিলেন প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. মো. মাহবুবুর রহমান, ট্রেজারার প্রফেসর ড. মো. আলমগীর হোসেন ভূঁইয়া এবং রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) মু. আতাউর রহমান।

শোভাযাত্রাটি ক্যাম্পাসের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বটতলায় এক আলোচনা সভায় মিলিত হয়।

ময়মনসিংহ

পহেলা বৈশাখ বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে ময়মনসিংহে বর্নিল-বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রাসহ নানা অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে জেলা প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় নগরীর স্টেশন রোড থেকে বিশাল বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়ে নগরীর প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জয়নুল আবেদিন পার্কের বৈশাখী মঞ্চে গিয়ে শেষ হবে। মঙ্গল শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ এমপি।

এ সময় বিভাগীয় কমশিনার শফিকুর রেজা বিশ্বাস, ভারপ্রাপ্ত ডিআইজি শাহ আবিদ হোসেন, জেলা প্রশাসক এনামুল হক, পুলিশ সুপার আহমার উজ্জামানসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

নগরবাসীর নজর কাড়তে মঙ্গল শোভাযাত্রায় আবহমান গ্রামবাংলার ঐতিহ্যের ও হারিয়ে যাওয়া সবকিছু জীবন্ত রূপে ফুটিয়ে তোলা হয়। এসময় রাস্তার দু’ধারে শতশত উৎসুক নগরবাসী ভিড় জমান।

নড়াইল নড়াইলে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দিপনার মধ্যদিয়ে নতুন বছরকে স্বাগত জানানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার নববর্ষকে বরণ করে নিতে প্রভাতী সংগীত অনুষ্ঠান, মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলন, মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়া দিনব্যাপী কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে লাঠিখেলা, হাড়িভাঙ্গা ও ঘুড়ি ওড়ানো প্রতিযোগিতা।

বর্ষবরণ উদযাপন পর্ষদ, নড়াইলের আয়োজনে এবং জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় মঙ্গল শোযাত্রাটি সুলতান মঞ্চ চত্বর থেকে বের হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে একইস্থানে এসে শেষ হয়।

অপরদিকে পৃথক কর্মসূচি জেলা শিল্পকলা একাডেমিতেও পালিত হয়। এসব কর্মসূচিতে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায়, নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজেন অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. রবউল ইসলাম, পৌর মেয়র আঞ্জুমান আরা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) মো. ফকরুলল হাসান, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি মলয় কুমার কুন্ডুসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

বগুড়া

বগুড়ায় বিভিন্ন শ্রেণি পেশার নানা বয়সী হাজারও মানুষের অংশগ্রহণে বের হয়েছে মঙ্গল শোভাযাত্রা। বৃহস্পতিবার পহেলা বৈশাখ সকাল সাড়ে ৮টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়।

জেলা প্রশাসক জিয়াউল হক ও পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্ত্তীর উপস্থিতিতে শোভাযাত্রাটি শহরের বিভিন্ন স্থান প্রদক্ষিণ করছে। বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে চলতে থাকে শোভাযাত্রা। বহন করা হয় বিভিন্ন ধরনের প্রতীকী শিল্পকর্ম। থাকে বাঙালি সংস্কৃতির পরিচয়বাহী নানা প্রতীকী উপকরণ।

মঙ্গল শোভাযাত্রায় অংশ নেয়া শিশু কিশোর-কিশোরী, তরুণ-তরুণী, যুবক-যুবতীসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার নানা বয়সী মানুষের হাতে শোভা পাচ্ছিল বাঙ্গালি জাতির পরিচয় বহনকারী নানা প্রতিকৃতি। মঙ্গল শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণ করে বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ও নানা শ্রেণি পেশার মানুষ। শোভাযাত্রায় বিপুল সংখ্যক শিশু-কিশোরও অংশ নেয়।

 

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে পুরাতন বছরের সকল গ্লানি মুছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে সব বয়সের মানুষ মেতে উঠে বর্ষবরণের উৎসবে। বর্ষবরণ উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ঢাক-ঢোল, রং বেরং এর প্লাকার্ড ফেস্টুন ও বাদ্য’র মধ্য দিয়ে মঙ্গল শোভাযাত্রা শহর প্রদক্ষিণ করে।

বৃহস্প্রতিবার সকাল ৯টায় জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্বরের সামনে থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রাটি বের হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চের সামনে গিয়ে শেষ হয়। পরে আলোচনা সভায় মিলিত হয়।

মঙ্গল শোভাযাত্রায় লোকজ সংস্কৃতি ফুটিয়ে তুলতে পাখি, প্যাঁচা, ঘোড়া, পালকি, হ্যারিকেন, মাছ ধরার জাল,পতুলসহ বিভিন্ন প্রাণির প্রতিকৃতি দেখা যায়। তবে অন্যবারের মত গ্রাম বাংলার নানা উপকরণ হাতে নিয়ে নেচে-গেয়ে ওঠার সেই চিত্র দেখা যায়নি।

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে গত দুই বছর বন্ধ থাকার পর মঙ্গল শোভাযাত্রায় অংশ নিতে পেরে উল্লাস ও উৎসাহের কমতি ছিলনা সাধারণ মানুষের।

শোভাযাত্রায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসক একেএম গালিভ খান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক জাকিউল ইসলাম, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইফফাত জাহানসহ প্রশাসনের বিভিন্নস্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

গোপালগঞ্জ

গোপালগঞ্জে মঙ্গল শোভাযাত্রা, দেয়ালিকা উদ্বোধনসহ নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখ পালিত হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার সকালে বাংলা বিভাগের সভাপতি জাকিয়া সুলতানা মুক্তার নেতৃত্বে ‘আলোকের পথে, প্রভু দাও দ্বার খুলে’ প্রতিপাদ্যে প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে একটি বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন চত্বর প্রদক্ষিণ করে।

মঙ্গল শোভাযাত্রার পরে বাংলা বিভাগে ‘বৈশাখী বার্তা’ দেয়ালিকা উদ্বোধন করা হয়। অনুষ্ঠান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও আমন্ত্রিত অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন।

এ ছাড়া বর্ষবরণ উৎসব-১৪২৯ উপলক্ষে বিকাল ৩টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠে আর্কিটেকচার বিভাগ ঘুড়ি উড়ানো উৎসব ‘উড়াল’ ও সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে আয়োজন করা হয়েছে রম্য বিতর্ক প্রতিযোগিতা।

উদীচী রঘুনাথপুর শাখার উদ্যোগে জেলা উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী আনন্দ শোভাযাত্রা আয়োজন করে।

 

টাঙ্গাইল

নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে টাঙ্গাইলে বাংলা নববর্ষ বরণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শহরের পৌরউদ্যান থেকে একটি বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

শোভাযাত্রার নেতৃত্ব দেন টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ডক্টর মো. আতাউল গনি। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন টাঙ্গাইল পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার, পৌর মেয়র এস এম সিরাজুল হক আলমগীরসহ অনেকে।

শোভাযাত্রায় গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য সাজে সজ্জিত হয়ে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারি, রাজনৈতিক নের্তৃবৃন্দ, শিক্ষক- শিক্ষার্থীসহ সর্বস্তরের নারী-পুরুষ অংশ নেয়। পরে জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

 

লক্ষ্মীপুর

মঙ্গলবার্তা ছড়িয়ে দুই বছর পর লক্ষ্মীপুরে অনুষ্ঠিত হয়েছে ১৪২৯ সনের বাংলা নববর্ষের মঙ্গল শোভাযাত্রা।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়। পরে শোভাযাত্রাটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে আলোচনা সভায় মিলিত হয়।

জেলা প্রশাসক মো. আনোয়ার হোছাইন আকন্দের নেতৃত্বে শোভাযাত্রায় অংশ নেয় বিভিন্ন পেশাজীবী ও সাধারণ মানুষ। পরে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, পুলিশ সুপার ড. এএইচএম কামরুজ্জামানসহ জেলা, উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা। আলোচনসভা শেষে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

 

নরসিংদী

বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে নরসিংদী জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে। পরে পলাশ তলায় আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও পরিবেশিত হয়।

বর্ষবরণের অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক আবু নইম মোহাম্মদ মারুফ খান, পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম, সিভিল সার্জন ডা: নুরুল ইসলাম, শিক্ষাবিধ প্রফেসর গোলাম মোস্তাফা মিয়া, ড. এশিউর রহমান মৃধা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোতালিব পাঠান বক্তব্য রাখেন।

পরে গ্রাম-বাংলার আবহমান নানা ঐতিহ্যবাহী বাউল গান, সাপখেলা অনুষ্ঠিত হয়। সবশেষে নরসিংদী স্টেডিয়ামে সাত দিনব্যাপী বৈশাখী মেলা উদ্বোধন করা হয়।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

‍এই ক্যাটাগরির ‍আরো সংবাদ